বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৫৪ অপরাহ্ন

কালীগঞ্জে জমির সীমানা নিয়ে সংঘর্ষ, থানায় মামলা

কালীগঞ্জে জমির সীমানা নিয়ে সংঘর্ষ, থানায় মামলা

মোঃ সাজু মিয়া, কালীগঞ্জ, লালমনিহাট

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় একই পরিবারের দুই জন গুরুত্বর আহতের ঘটনা ঘটেছে।এ সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার দলগ্রাম ইউনিয়নের ধনসড়া ১ নং ওয়ার্ডে।

আহতরা হলেন উপজেলার ধনসড়া এলাকার আসাদুল ইসলাম (৫৫) ও তারই ছেলে মোমিনুর রহমান(২৭)।

এ ঘটনায় গত ৪ জুলাই আহত আসাদুল ইসলাম বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৫। মামলার পর পুলিশ প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করেন।

রবিবার (১ আগস্ট) মামলার বাদী আসাদুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, মামলার ১ নং আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে ২৬ দিনেও বাকী আসামীরা রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।

যারা হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপর হামলা করেছে তাদের উপযুক্ত বিচার দাবী করেন ভুক্তভোগী আসাদুল।

মামলার এজাহার সুত্রে জানা যায়, উপজেলার দলগ্রাম ধনসড়া এলাকার মৃত ইসমাইল হোসেনের ছেলে আসাদুল ইসলামের জমির সীমানাকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ মুসরত মদাতী এলাকার মোস্তাফিজার রহমান গংদের বিরোধ চলছিল।

উক্ত বিরোধের জের ধরে গত ৩০ জুলাই দুপুর ১টার দিকে আসাদুল ইসলাম সেই জমিতে আইলের মাটি কাটার সময় মকছুদার,সহিদার,রাজু,সাজু,মোস্তাফিজার পুর্ব পরিকল্পিতভাবে মোস্তাফিজার রহমানের হুকুমে মকছুদার রহমানের হাতে থাকা দা দিয়ে আসাদুল ইসলামকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা বরাবর কোপ মারে।

এতে গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয়ে আসাদুল মাটিতে পড়ে যায়। মাটিতে পড়ে যাওয়ার পরও রাজু বুকের উপর বসে গলা চিপিয়া ধরে এবং সাজু লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে।

খবর পেয়ে আসাদুলের স্ত্রী তাদেরকে মারপিট করতে নিষেধ করলে তার স্ত্রীর গলায় থাকা ৮আনা ওজনের স্বর্ণের চেন মকছুদার রহমান টানা হেচড়া করে ছিড়ে নেন।

আসাদুলের ছেলে মোমিনুর আগাইয়া গেলে তাকে ও হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা বরাবর কোপ মারে এসময় তাদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন আগাইয়া গেলে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান হামলাকারীরা ।

পরে হরবানীনগর এলাকার আমিনুর রহমান গুরুতর রক্তাক্ত অবস্থায় আসাদুল ও ছেলে মোমিনুরকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। যাহার ভর্তি রেজিঃ নং ৭৫৭৯/১৬, বেড নং-১০ এবং ৭৫৮০/১৫, বেড নং লক্ষ -১৫। ভর্তির তারিখ-৩০ জুন।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জহুরুল ইসলাম বলেন, আসামীরা এলাকায় না থাকায় তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছে না তবে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত আছে।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আরজু মোঃ সাজ্জাদ হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতারের পর জামিনে রয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

 

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution