1. jfjoy24@gmail.com : admin :
  2. wordpressdefaults@gmail.com : defaults :
খানসামার রামনগর গ্রামে ৫০ বিঘা আবাদী জমির জলাবদ্ধতা নিরসন করলেন ইউএনও মাহবুব | তিস্তা সংবাদ
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১২:২০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রংপুরে ডাক্তার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাকিরের বিরুদ্ধে পিস্তল উঁচিয়ে প্রতিবেশীকে হুমকি, (জিডি) নথিভুক্ত পীরগাছায় উপজেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত গঙ্গাচড়ায় শেখ হাসিনা সেতুর কার্পেটিংয়ে ফাটল, ভারী যানবাহনে নিষেধাজ্ঞা রংপুরে মরিচক্ষেত থেকে অজ্ঞাত যুবকের মর*দেহ উদ্ধার রংপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের আয়োজনে ঈদ ক্রিকেট ফেস্টিভ্যালের পুরুষ্কার বিতরণ ঈদে দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর আলী বাবা থিম পার্ক বিনোদন কেন্দ্র বিষাক্ত সাপ রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক, বন বিভাগের ৭ পরামর্শ দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা তিস্তায় নৌকাডুবি: দ্বিতীয় দিনের অভিযান শেষ, এক পরিবারের ৪ জনসহ এখনও নিখোঁজ ৬

খানসামার রামনগর গ্রামে ৫০ বিঘা আবাদী জমির জলাবদ্ধতা নিরসন করলেন ইউএনও মাহবুব

প্রতিনিধি
  • আপডেট বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১
  • ১৪৪

খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি 

বিভিন্ন প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় জলাবদ্ধতার ফলে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার ভাবকি ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের ৫০ বিঘা জমির চাষাবাদ ব্যাহত শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে জলাবদ্ধতা নিরসন করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম। বৃহস্পতিবার (৫আগস্ট) সকালে সরেজমিনে পরিদর্শন করে স্থায়ী পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করেন ইউএনও মাহবুব। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভাবকী ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ও ঐ এলাকার চাষীরা। জানা যায়, দীর্ঘ ৩ বছর থেকে জলাবদ্ধতার ফলে প্রায় ৫০ বিঘা আবাদী জমিতে চাষাবাদ ব্যাহত হচ্ছে বিষয়ে বিভিন্ন প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয় এরপরেই ইউএনও এবং ইউনিয়ন পরিষদ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে সমাধান করেন।

ইউএনও মাহবুবকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ঐ এলাকার কৃষক নাসির উদ্দিন বলেন কালভার্ট বন্ধ করে দিয়ে বাড়ি নির্মাণ করে। তখন থেকেই জলাবদ্ধতার কারণে ৩ ফসলি জমিতে বছরে এক বার আবাদ করতে হচ্ছে। পরে এটি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলে ইউএনও স্যার নিজ উদ্যোগে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে দেন। এতে আশা করি চলতি মৌসুমে ধান চাষাবাদ করতে পারব। ভাবকী ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিনের বিরাট একটা সমস্যার সমাধান হয়েছে। স্থানীয় কৃষকরা ফসল উৎপাদন করে পুনরায় নিজেদের পাশাপাশি এলাকার চাহিদাও পূরণ করবে। ইউএনও আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম বলেন, বর্তমান সরকার কৃষিকাজের ওপর বেশ জোর দিয়েছেন। কৃষিকাজে কৃষকের একখণ্ড জমিও যাতে অনাবাদি না থাকে সে বিষয়টি অগ্রাধিকার দিয়ে আমি দ্রুত স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদসহ সমাধান করার চেষ্টা করেছি। আশা করি এ বছর থেকেই ধান চাষ করে কৃষকরা লাভবান হতে পারবে। চাষীরা প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেও আমি বিষয়টি আমার দায়বদ্ধতা মনে করি।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০২৪ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | তিস্তা সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun