রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রংপুরে শিশু নির্যাতনের প্রতিবাদ করতে গিয়ে  মিথ্যা মামলায় কারাগারে ইউপি সদস্য জবি ছাত্রলীগের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি রাফি সেক্রেটারি সাদেক পীরগঞ্জে বিএনপির উদ্যোগে গরিব অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ গঙ্গাচড়ায় শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ গঙ্গাচড়ায় বীর মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দের মাঝে কম্বল বিতরণ গঙ্গাচড়ায় এনজিও ফেডারেশনের উদ্যোগে শীতার্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ গঙ্গাচড়ায় নবাগত ইউএনও’র সঙ্গে সাংবাদিকদের মতবিনিময় হেলপিং হ্যান্ড ফাউন্ডেশনের উদ্বোধন উপলক্ষে শীত বস্ত্র বিতরণ ব্যবসায়ীক জীবনে সড়ক থেকে সর্বোচ্চ করদাতা; তানবীর ও তৌহিদ দুই ভাইয়ের হার না মানার গল্প ইয়াবা সহ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের জালে ব্যবসায়ী
গঙ্গাচড়ায় পুকুরে মিললো ২ সন্তানের জননীর লাশ

গঙ্গাচড়ায় পুকুরে মিললো ২ সন্তানের জননীর লাশ

 

সুজন আহম্মেদ, রংপুর প্রতিনিধি

রংপুরের গঙ্গাচড়ার একটি পুকুর থেকে আজ রোববার দুপুরে উম্মে হানি নামের (৪২) দুই সন্তানের এক জননীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ ।

নিহতের কন্যা জানিয়েছেন পারিবারিক বিরোধের জেরে তার বাবা, মাকে হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে দিয়েছে । আর পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় একটি ইউডি মামলা নেয়া হয়েছে ।

প্রাথমিক তদন্তর উদ্ধৃতি দিয়ে রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল) আবু তৈয়ব মোঃ আরিফ হোসেন , শনিবার রাতে খাবারের পর বড়বিল ইউনিয়নের মাল্লিপাড়া গ্রামের জিয়ারুল ইসলাম ও তার স্ত্রী উম্মেহানী (৩৫) ঘুমিয়ে পড়েন । পরে রাত সাড়ে তিনটার দিকে উম্মে হানীর লাশ স্বামী জিয়ারুল বাড়ির পাশের পুকুর থেকে তুলে বাড়ির উঠানে নিয়ে এসে রাখেন ।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলছেন , রোববার সকালে খবর পেয়ে আমরা তার বাড়ির উঠোন থেকে লাশ উদ্ধার করি । সেখানে রিপোর্ট লেখার পর ময়না তদন্তের জন্য লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠাই । এ বিষয়ে একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে ।

পোস্ট মোর্টেম রিপোর্টের পরই স্পস্ট হবে তাকে হত্যা করা হয়েছে । নাকি কিভাবে তিনি মারা গেলেন ।

ঘটনাস্থল থেকে থানার এসআই আব্দুর রউফ জানান, তার স্বামী ঘটনার পর বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে । লাশ থানায় এনে মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে ।

নিহতের কন্যা জবা বেগম জানান, আমার বাবা তিনমাস আগে গঙ্গাচড়া সদর ইউনিয়নে ভুটকা গ্রামে জান্নাতি নামের একজনকে বিয়ে করেন । এ নিয়ে বাপের সাথে মায়ের ঝগড়াঝাটি লেগেই ছিল । বাবাই আমার মাকে হত্যা করে পানিতে ফেলে দিয়েছে ।

তবে নিহতের পুত্র জীবন জানান, আমার মায়ের মৃগি রোগ ছিল ।

ঘটনাটি হত্যা নাকি অন্যকিছু তা খতিয়ে দেখতে পুলিশের কাছে দাবি করেছেন নিহতের পরিবার এবং এলাকাবাসী ।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution