বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:৩৯ অপরাহ্ন

পঞ্চগড় জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজি নং – রাজ ২৬৪) সভাপতির পদত্যাগ

পঞ্চগড় জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজি নং – রাজ ২৬৪) সভাপতির পদত্যাগ

 

মোঃ সইনুল রহমান আকাশ, পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি:

 

পঞ্চগড় জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজি নং – রাজ ২৬৪) সভাপতি মোশারফ হোসেন সংগঠনের বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাত ও গঠনতন্ত্রের বহিভুত অন্যায় কাজ করাতে দায় স্বীকার করে সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন।

রবিবার(১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে অভিযোগের দায় স্বীকার করে তিনি নিজ ইচ্ছায় লিখিত ভাবে পদত্যাগ করেন ।

উল্লেখ্য পঞ্চগড় জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং-রাজ ২৬৪ এর বিরুদ্ধে পঞ্চগড় জেলা ট্রাক(মিনিট্রাকসহ)ট্রাক্টর,ট্যাংলরী ও কভার্ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং-রাজ ২০০০ এর সাথে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে ঢাকা হাইকোটে মামলা চলছিল।

গত ২০১৮ সনে নির্বাচিত সভাপতি মো: রেনু মিয়া হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরন করলে সিনিয়র সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়ীত্ব নেয়ার পরে,গত ১১/০২/২০১৮ইং তারিখে আলোচনান্তে নিজ সংগঠনের প্যাডের পাতায় তখনকার সাধারন সম্পাদক মো: খন্দকার আব্দুর রশিদসহ দুজনে মিলে মহামান্য হাইকোটের রিট পিটিশন নং-৩৭১৪/২০১৪ মামলাটি পঞ্চগড় জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং-রাজ ২৬৪ শ্রমিক সংগঠনের সুবিধার্থে মামলাটি শেষ করার জন্য দুটি সংগঠনের সভাপতি/সম্পাদক যৌথ ভাবে ২২/০৬/২০১৮ ইং তারিখে স্বাক্ষর করেন। যাহা অত্র সংগঠনে প্রকাশ করেননি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো: মোশারফ হেসেন।

পরবর্তি নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসায় অত্র সংগঠনের গত ৩০ আগস্ট ২০১৮ ইং তারিখে ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে মো: মোশারফ হোসেন সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সভাপতি হিসেবে শ্রমিক সংগঠনের নির্বাচিত কমিটিকে নিয়ে আলোচনান্তে মহামান্য হাইকোটের রিট পিটিশন নং-৩৭১৪/২০১৪ মামলাটি পরিচালনার জন্য সভাপতি মো: মোশারফ হোসেনকে সংগঠনের নিয়ম অনুযায়ী মামলার ব্যয়ভার নির্বাচিত কমিটি বহন করার সিদ্ধান্ত নেয়।

এদিকে ওই মামলাটি চলার তিন বছরে কমিটি সভাপতির হাতে প্রায় ৪৭ লক্ষ টাকা দিয়ে কোন প্রকার উপকার পাননি বলে জানান কমিটির নেতারা।

এনিয়ে যৌথ স্বাক্ষরের বিষয়টি জানাজানি হলে সংগঠনের নেতা ও সাধারন শ্রমিকরা একজোট হয়ে পঞ্চগড় জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং-রাজ ২৬৪ সভাপতি মো: মোশারফ হোসেনর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগসহ তুলে সাধারণ শ্রমিকরা।

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ পেয়ে শ্রমিকরা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের হলরুমের বাহিরে এবং কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে বিক্ষোভ শুরু করে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনতে সিনিয়র সহ-সভাপতি খায়রুল আলমের সভাপতিত্বে তাৎক্ষণিক নির্বাহী কমিটির জরুরী আলোচনা সভা আহ্বান করা হয়।

আলোচনার এক পর্যায়ে সভাপতি মোশারফ হোসেন ভুল স্বীকার করে সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করলে শ্রমিকরা শান্ত হয়।

পদত্যাগ পত্রে উল্লেখ করা হয়, আমি অদ্য ১৯/০৯/২০২১ ইং তারিখে অত্র সংগঠনের কার্যকরী সদস্যগনের উপস্থিতিতে উত্তপ্ত শ্রমিকদের প্রতিবাদের মুখে আমি আমার সভাপতির পদ হইতে স্ব-ইচ্ছায় পদত্যাগ করিলাম।

আমার দায়িত্ব পালনকালে সংগঠনের হিসাব-নিকাশ অন্তে কোন পাওনা দি থাকিলে পরিশোধে বাধ্য থাকিব এবং সংবিধান পরিপন্থী কোনো কার্যকলাপ করিলে আইনত দন্ডনিয় হইব মর্মে তার অফিসিয়াল সিলমোহর দিয়ে পদত্যাগ পত্রে স্বাক্ষর করেন তিনি।

এসময় জেলা মোটর পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যনির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম,সহ-সভাপতি খায়রুল ইসলাম,সহ-সভাপতি আনিসুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সস্পাদক আকবর মিয়া,সহ-সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মুকুল,সড়ক সম্পাদক মো.লুৎফর রহমান,অর্থ সম্পাদক আইয়ুব আলী সহ-সড়ক সম্পাদক মো.সারোয়ার হোসেন,দপ্তর সম্পাদক রমজান আলী,প্রচার সস্পাদক মো.ফরহাদ হোসেন,সমাজ কল্যাণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম,ক্রীড়া সম্পাদক মো,রাজু, কার্যকরী সদস্য জহিরুল ইসলাম,সবুজ মিয়া,আব্দুল জলিলসহ অন্যান্য শ্রমিক নেতা ও শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution