শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৪১ পূর্বাহ্ন

গজঘন্টা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী লিয়াকত আলী জনপ্রিয়তায় এগিয়ে

গজঘন্টা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী লিয়াকত আলী জনপ্রিয়তায় এগিয়ে

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি
রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন
প্রত্যাশী লিয়াকত আলী ইউনিয়নে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন। নির্বাচন
কমিশন কর্তৃক ইউপি নির্বাচনের ১ম দফার পর ২য় দফার তফসীল ঘোষণা করলেও
গঙ্গাচড়া উপজেলার কোন ইউনিয়ন এর আওতায় পড়ে নাই। ফলে পরবর্তী যে কোন
দফায় হতে পারে এ উপজেলার নির্বাচন। কিন্তু দলীয় মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের
সম্ভব্য প্রার্থীরা গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। তবে এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম লিয়াকত
আলী। তিনি দীর্ঘদিন থেকে সাধারণ মানুষের মাঝে বেশির ভাগ সময় দিয়ে
আসছেন। ইউনিয়নের মানুষের নানা সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি শেখ হাসিনা
সরকারের উন্নয়নের কর্মকান্ড তুলে ধরছেন। আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য হিসেবে
তার পরিচিতি রয়েছে। ইউনিয়নবাসী তাকে পরিচ্ছন্ন, নীতিবান ও সত্য ব্যক্তি
হিসেবে মূল্যায়ন করে। লিয়াকত আলীর আদর্শ ও মানুষের পাশে থাকার ভালবাসাই
আজকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে
রয়েছে। সরেজমিনে গতকাল বুধবার গজঘন্টা ইউনিয়নে গেলে দেখা যায়,
লিয়াকত আলী বিভিন্ন এলাকায় ও হাট বাজারে মানুষের সাথে কুশল বিনিময়
করছেন। সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরে নির্বাচনকালীন সময়ে নৌকা
প্রার্থীর জন্য দোয়া ও ভোট কামনা করছেন। এ সময় রাজবল্লভের বৃদ্ধ আবু তালেব
(৮৫), এফাজ উদ্দিন (৮২), এন্দাজ আলী (৬৬), আবুল কালাম (৬৫), আজিজুল (৫৭), নুর
আমিন (৫৫) জানান, লিয়াকত আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান। তার বাবা একজন বীর
মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে গেছেন। বাবার হাত ধরে আওয়ামী
লীগে আসা লিয়াকত এখনো আওয়ামী লীগে আছেন। কোন লোভের আসায় দল
করেননি। ইউপি চেয়ারম্যান থাকাকালীন ভালো কাজ করেছেন। জয়দেব গ্রামের
জয়নাল আবেদীন (৬৫), আতিয়ার (৫৫), হায়দারুল (৪৫), আজহারুল (৫৫) বলেন,
লিয়াকত আলী আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনা সরকারের কর্মকান্ড নিয়ে মানুষের
সাথে কথা বলেন। বিপদে-আপদে মানুষের পাশে থাকেন। এসব কারণে মানুষ তাকে
পছন্দ করে ও ভালবাসে। গজঘন্টা বাজার এলাকার একরামুল, জয়দেব দোলাপাড়ার মিলন,
মানাসপাড়ার মজিবর, বালাটারীর নূরল, ওমরের বকুল, গাওছোয়ার সাত্তার, কিশামত
হাবুর জব্বার, পাঁচমাথার ওয়াজেদ জানান, লিয়াকত আলী এর আগে ইউপি
চেয়ারম্যান থাকাকালীন ইউনিয়নের মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। তার সে
সুনাম রয়েছে। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের যোগ্য প্রার্থী হিসেবে
মনোনয়ন পেয়ে সামান্য ভোটে হেরে গেছেন। আমরা ভোটাররা জানি ইউনিয়নের
তার দলের কিছু লোক তাকে হারানোর জন্য কৌশলে বিপক্ষে কাজ করেছিলেন। এর
থেকে ভোটাররা এবার সজাগ হয়েছেন। কোন ষড়যন্ত্র মূলক কৌশলই লিয়াকতকে
ঠেকাতে পারবে না। ইউনিয়নের রহিম, ফেরদৌস, আলাল জানান, লিয়াকত যেখানেই
সরকারের উন্নয়নমূলক নিয়ে আলোচনা করেন সেখানে অল্প সময়ের মধ্যে অনেক
মানুষের সমাগম ঘটে।
লিয়াকত আলী ছাত্র জীবন থেকেই আওয়ামী ছাত্রলীগের সঙ্গে রাজনীতিতে যুক্ত হন।
তিনি কলেজ, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে
ছিলেন। উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ছিলেন। এছাড়া আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন ও
উপজেলা পর্যায়ের দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-
সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তার বাবা মরহুম মোজাফ্ফর হোসেন একজন
বীরমুক্তিযোদ্ধা। বাবা আওয়ামী লীগের উপজেলা পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব
পালন করেছেন। ১৯৯১ সালে রংপুর-১ আসনে জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচনে
আওয়ামী লীগ সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী জনসভায়
লিয়াকত আলীর বাবা সভাপতিত্ব করেছেন।
লিয়াকত আলী বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বাবার হাত ধরে
আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত হয়ে দেশ তথা মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি।
ইউপি নির্বাচনে দল আমাকে মনোনয়ন দিলে ইউনিয়নবাসীর ভালবাসায় নৌকা
প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত হবে বলে আশাবাদী।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution