বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৩৮ পূর্বাহ্ন

পীরগঞ্জের ৫নং মদনখালী ইউনিয়ন

পীরগঞ্জের ৫নং মদনখালী ইউনিয়ন

মোস্তফা মিয়া, পীরগঞ্জ(রংপুর)

রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার ১৫টি ইউনয়নের মধ্যে ৫ নং মদনখালীও একটি । এটির পুরো নাম ৫নং মদনখালী ইউনিয়ন । রংপুর জেলা সদর থেকে ৪৭ কিলোমিটার দুরে এবং পীরগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে পশ্চিমে এ ইউনিয়নটির অবস্থান । এ ইউনিয়নটের পুর্বে রায়পুর, পশ্চিমে টুকুরিয়া, উত্তরে চৈত্রকোল ও দক্ষিনে বড়আলমপুর ইউনিয়নের অবস্থান ।


এ ইউনিয়নটির অধীনে ১৯টি গ্রাম রয়েছে, গ্রামগুলি হচ্ছে,জাফরপাড়া, থিরারপাড়া, বাবনপুর, খেরুয়াআলমপুর,মাগুড়া,উল্লাগাড়ী,জুনিদেরপাড়া,বড়ফলিয়া,কাফ্রিখাল,ধাড়াকোল,মদনখালী,হাসারপাড়া, খয়েরবাড়ী, ঠাকুরদাস লীপুর, কাদিরাবাদ, কোচারপাড়া, করিমলীপুর ও খেতাবেরপাড়া ।


এ ইউনিয়নের খালাশপীরে রয়েছে একটা প্রাচীনতম মসজিদ । যার দৈর্ঘ্য ৬০ ফুট প্রস্থ ২০ ফুট। যেটি ৫০ ইঞ্চি পুরো গাথুনী এবং ইরাণী নক্শা খঁচিত ছিল। বর্তমানে উহা সংষ্কার করা হয়েছে। এ মসজিদ সম্পর্কে একটা ইতিহাস রয়েছে, বিগত ১৪২৪-১৫৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত এ অঞ্চলে ঠাকুর বংশের লোকজন রাজত্ব করতেন। তাদের অনুমতি ছাড়া কেহ কোন প্রকার উন্নয়ন মূলক কাজ করতে পারতো না। পারতো না বিয়ে-সাদী বা কোন আচার-অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে। সে সময় এ এলাকায় আগত ইসলাম ধর্ম প্রচারক পীর-দরবেশগণ এ অঞ্চলে ইসলাম প্রচার করতঃ লোকজনকে ইসলাম ধর্মে দীতি করেন। দলে দলে লোক মুসলমান ধর্ম গ্রহন করে ঠাকুর পরিবারের অত্যাচার থেকে খালাশ প্রাপ্ত হন। আর সে থেকেই এ স্থানের নামকরণ করা হয় খালাশপীর।

ইউনিয়নটির ভৌগোলিক আয়তন ২৬.৬৯ বর্গ মিলোমিটার । জনগনের দ্রব্যাদি ক্রয় বিক্রয়ের জন্য এখানে ১টি ইজারা প্রদানকৃত সহ ৪ টি হাট বাজার রয়েছে । মদনখালী ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ২৭ হাজার ৩ শত ৮০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৪ হাজার ২৫০ জন ও মহিলা ১৩ হাজার ১৩০ জন।

শিক্ষা বিস্তারের জন্য ইউনিয়নটিতে রয়েছে বেশ কিছু সংখ্যক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । এখানে রয়েছে, ১টি ডিগ্রী কলেজ, ১টি মহিলা কলেজ, ১টি কারিগরি কলেজ, ৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৪টি এবতেদায়ী মাদ্রাসা, ৩টি দাখিল মাদ্রাসা, ১টি ফাজিল মাদ্রাসা ও ১টি কামিল মাদ্রাসা । দেশ বিদেশের বিনোদন পিপাসুদের জন্য রয়েছে “ আনন্দ নগর’ নামে একটি বিনোদন কেন্দ্র ।

এ ইউনিয়নটিতে ইউপি নির্বাচন হতে যাচ্ছে আগামী ১১ নভেম্বর । ইউনিয়নটিতে মোট ভোটার সংখ্যা ১৮ হাজার ৭ শ’৫০ । এর মধ্যে পুরুস ৯ হাজার ৪’শ ৭ জন এবং মহিলা ৯ হাজার ৩শ’ ৪৯ জন । এ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্ধিতা করছেন ৪ জন । সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৪ জন এবং সাধারন সদস্য পদে ৩৫ জন । গত নির্বাচনে নৌকা প্রতিকে এখানে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন আ’লীগের শামছুল আলম ।

এবারেও তিনি দলীয় মনোনয়ন নৌকা প্রতিক পেয়ে নির্বাচনে প্রতিদন্ধিতা করছেন। চেয়ারম্যান পদে অপর যে ৩ জন প্রতিদন্ধিতা করছেন তারা হলেন, সাবেক চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মনজু মিয়া (স্বতন্ত্র), মতিউর রহমান (সতন্ত্র) ও মতিউর রহমান (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ )।
সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে যারা প্রতিদন্ধিতা করছেন তারা হলেন, ছালমা বেগম,মাসুদা আকতার, মোরশেদা বেগম, শিউলী বেগম, লাকী বেগম, শিরিনা খাতুন, সুফিয়া বেগম, আকতারা বেগম, ফাতেমা বেগম, সালমা বেগম, ছেলিনা বেগম, ফাতেমা বেগম, ফেরদৌসী বেগম ও সোনালী বেগম । সাধারন সদস্য পদে যারা প্রতিদন্ধিতা করছেন তারা হলেন, আকমল হোসেন, মিজানুর রহমান, শফিকুল ইসলাম, আজিজার রহমান, আবুল বাসার, সুলতান মিয়া, আতাউর রহমান, আবুল কাশেম, মাসুদ মিয়া, মোস্তাফিজার রহমান, আঃ কাশেম, আতোয়ার রহমান, আমিনুল ইসলাম, মজনু মিয়া, রফিকুল ইসলাম, রাশেদুল ইসলাম, লিটন মিয়া, সাজু মিয়া, রাহেনা খাতুন, কবির উদ্দিন, মধু মিয়া, মনোয়ার হোসেন, শাফিউল আলম, জিয়াউর রহমান, আব্দুর রহিম, জুলহাজ , শহিদুল ইসলাম,মিলটন আহামেদ, শাহজাহান মিয়া, সাহাদত হোসেন, আশরাফুল ইসলাম, নুর আলম, নুরুল ইসলাম, মিল্লাত হোসেন ও হানিফুর রহমান ।

এ ইউনিয়নের বেশ ক’জন ইউপি সদস্য প্রার্থীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশ নিয়ে তারা সন্দিহান । তারা সকলেই সুষ্ট নির্বাচনের প্রত্যাশা করেন । সাধারন ভোটারদেরও একই অভিমত । তারা তাদের পছন্দসই জন প্রতিনিধি নির্বাচন করতে চান ।

 

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution