রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রংপুর সিভিল সার্জন হীপ বাংলাদেশ সোসাইটির উদ্যোগে চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ করেছেন রংপুর মহানগর ইলেকট্রিক্যাল দোকান মালিক এসোসিয়েশনের কমিটি গঠন রংপুরে এসো ভবিষ্যৎ গড়ি ভোগ্যপণ্য সমবায় সমিতির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত রংপুর কর রসিক অঞ্চলে পিতা দীর্ঘমেয়াদী এবং পুত্র তরুণ সেরা করদাতা চতুর্থ বারের মতো তরুণ সেরা করদাতা তৌহিদ হোসেন পীরগঞ্জে প্রেমিকার ভয়ে পালিয়ে থাকা প্রেমিক;অবশেষে বিয়ে ফুলবাড়ীতে ঝুঁকি নিয়ে জরাজীর্ণ বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার রংপুরে প্রভাতী মুক্ত স্কাউট ইনস্টিটিউটের ৮ম শ্রেনী’র শিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত পীরগঞ্জে বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত গঙ্গাচড়ায় বড়বিলে লাঙ্গল পেলেন কাজী মিলন
গজঘন্টা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী জনপ্রিয়তায় এগিয়ে এখন নাজমুল হুদা

গজঘন্টা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী জনপ্রিয়তায় এগিয়ে এখন নাজমুল হুদা

সুজন আহম্মেদ,গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী গজঘন্ট কিসামত হাবু দ্বিমুখী দাখিল মাদরাসা সহকারি শিক্ষক নাজমুল হুদা জনপ্রিয়তায় এখন এগিয়ে রয়েছেন।

নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ইউপি নির্বাচনের ৪ দফায় তফসীল ঘোষণা হয় গঙ্গাচড়া উপজেলার ইউনিয়ন নির্বাচন। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে বিভিন্ন এলাকায় প্রচারনা চালাচ্ছেন, এদিকে দলীয় মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগের সম্ভব্য প্রার্থীরা গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

তবে এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম নাজমুল হুদা তিনি দীর্ঘদিন থেকে সাধারণ মানুষের দাড়ে দাড়ে গিয়ে বেশির ভাগ সময় দিয়ে আসছেন। ইউনিয়নের মানুষের নানা সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়নের কর্মকান্ড তুলে ধরছেন। আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য ও হিসেবে তার পরিচিতি রয়েছে। ইউনিয়নবাসী তাকে , নীতিবান ব্যক্তি হিসেবে মূল্যায়ন করেন।

নাজমুল হুদা আদর্শ ও মানুষের পাশে থাকার ভালবাসাই আজকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে জনপ্রিয়তায় এখন এগিয়ে রয়েছে। সরেজমিনে গতকাল বৃস্পতিবার গজঘন্টা ইউনিয়নে গেলে দেখা যায় নাজমুল হুদা বিভিন্ন এলাকায় ও হাট বাজারে মানুষের সাথে কুশল বিনিময় করছেন।

সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরে নির্বাচনকালীন সময়ে নৌকা প্রার্থীর জন্য দোয়া ও ভোট কামনা করছেন। এ সময় রাজবল­ভের বৃদ্ধ আবু তালেব গজঘন্টা বাজারের মুহাম্মদ আলী, শ্রী প্রদীপ কুমার শীল,নজরুল ইসলাম, ছালাপাক এলাকার আলম মেম্মবর, রৈচ উদ্দিন, গাউছিয়া বাজারের সাগর, বাদশা মিয়া, খামারটারী বাজারএলাকার আশরাফুল ইসলাম, মতলেব বাজারের মোসলেম উদ্দিন, বাবলু, সুরুজ মিয়া, মাছুম আলী, দুখু মিয়া, হাবু চারমাথা মোড়ের আফতাব, লতিফ, মমিনুর, হাবু বালারঘাট মোড়ের ওসমান সবুজ, হাবু পাঁচ মাথা মোড়ের, আরিফ মিয়া, মহসিন আলী কাষ্টম বাজারের রাজা মিয়া, ফরহাদ হোসেন শাকি, আঃ রশিদ বালাটারী এলাকার রমজান আলী, সিরাজুল ইসলাম, পাকারমাথা বাজার এর আশরাফুল ইসলাম, লোকমান আলী এবং কিসামতহাবুর এলাকার মতিয়ার রহমান, রবিউল ইসলাম, জাকির হোসেন, উমর, টেনপাড়ার দুলাল মিয়া, জানান, নাজমুল হুদা লীগ পরিবারের সন্তান।

তার বাবা এখনো ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য পদে রাজনীতি করে আসছেন। বাবার হাত ধরে আওয়ামী লীগে আসা নাজমুল হুদা এখনো ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামী লীগওে সদস্য এবং বিগত সময় তিনি সাবেক রংপুর সরকারী কলেজ শাখার বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সদস্য, গজঘন্টা ইউনিয়ন শাখার সাবেক ”সেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক , যুবলীগের সভাপতি, আওয়ামী লীগ যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনা সরকারের কর্মকান্ড নিয়ে মানুষের সাথে কথা বলেন। বিপদে-আপদে মানুষের পাশে থাকেন। এসব কারণে মানুষ তাকে পছন্দ করে ও ভালবাসে। গজঘন্টা বিভিন্ন এলাকার তার সে
সুনাম রয়েছে।

বালাটারী এলাকার রমজান আলী, সিরাজুল ইসলাম জানান, নাজমুল যেখানেই সরকারের উন্নয়নমূলক নিয়ে আলোচনা করেন সেখানে অল্প সময়ের মধ্যে অনেক মানুষের সমাগম ঘটে। নাজমুল হুদা ছাত্র জীবন থেকেই আওয়ামী ছাত্রলীগের সঙ্গে রাজনীতিতে যুক্ত আছেন। তিনি কলেজ, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন। ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছিলেন। এছাড়া আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ের দায়িত্ব পালন করেছেন। নাজমুল হুদা বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বাবার হাত ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত হয়ে দেশ তথা মানুষের কল্যাণে কাজ করতেছি। ইউপি নির্বাচনে দল আমাকে মনোনয়ন দিলে ইউনিয়নবাসীর ভালবাসায় নৌকা প্রতীকের বিজয় লাভ হবে বলে আশাবাদী।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2021 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution