1. jfjoy24@gmail.com : admin :
  2. wordpressdefaults@gmail.com : defaults :
পীরগঞ্জের কুমেদপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অপহরণসহ চাঁদাবাজীর মামলা ! | তিস্তা সংবাদ
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৭:৩৮ পূর্বাহ্ন

পীরগঞ্জের কুমেদপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অপহরণসহ চাঁদাবাজীর মামলা !

প্রতিনিধি
  • আপডেট শনিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ১০৭
পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ৪নং কুমেদপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে রংপুর বিজ্ঞ আদালতে ব্যবসায়ী অপহরণসহ অন্যায় ভাবে মারডাং করে মোটা অংকের চাঁদা দাবী করার অভিযোগে একটি মামলা করা হয়েছে। গত ৬ ফেব্রæয়ারী/২২ইং তারিখে রংপুর জেলার পীরগঞ্জ আমলী আদালতে এ মামলা করা হয়।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়-উক্ত ইউনিয়নের সদ্য নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম গত ৩ ফেব্রæয়ারী/২২ইং তারিখে বেলা আনুমানিক ১২টার দিকে উপজেলার নথার পাড়া গ্রামের আতোয়ার রহমানের পুত্র (গ্রীল ব্যবসায়ী ) বখতিয়ার রহমান (২৭) কে কুমেদপুর বাজার থেকে চেয়ারম্যানের সহযোগি রিপন মিয়ার মাধ্যমে ইউপি কার্যালয়ে ডেকে নেন। এর পর ইউপি কার্যালয়ের একটি কক্ষে আটকিয়ে ব্যবসায়ী বখতিয়ার রহমানের নিকট ১লক্ষ ৫০হাজার টাকার চাঁদা দাবী করেন। উক্ত দাবীকৃত চাঁদা না দিলে তাহাকে মাদকসহ চুরির মামলায় পুলিশে চালান করবে মর্মে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখানো হয়। ব্যবসায়ী বখতিয়ার রহমান চাঁদাদিতে অস্বীকৃতি জানালে, চেয়ারম্যান আমিনুল ও তার সহযোগি রিপন মিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে গ্রাম্য পুলিশের লাঠিদ্বারা দফায় দফায় মারডাং করে গুরুতর আহত করে । পরে বিষয়টি ব্যবসায়ী বখতিয়ার রহমানের স্বজন ও গ্রামবাসীরা জানতে পেরে ইউপি পরিষদে ভীড় জমালে অবস্থা বেগতিক দেখে অপহরণকৃত ব্যবসায়ীকে বের করে দিতে বাধ্য হয় চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম। গ্রামবাসী আশংকাজনক অবস্থায় ব্যবসায়ী বখতিয়ারকে উদ্ধার পূর্বক পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানচিকিৎসায়। সুস্থ্য হওয়ার পর গত ৬ ফেব্রæয়ারী/২২ইং তারিখে রংপুর জেলার পীরগঞ্জ আমলী আদালতে উক্ত ব্যবসায়ী এ মামলা করেন, মামলা নং-সি আর-৫৮/২২। রংপুর পীরগঞ্জ বিজ্ঞ আমলী আদালতের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিট্রেড শওকত হোসেন বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আমলে নিয়ে সুষ্ট তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টেকিশন (পিবিআই) রংপুরকে দায়িত্ব দেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান আমিনুলের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করাহলে তিনি কথা বলতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করেন। এ ব্যাপরে অত্র ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান লালমিয়া, মোশফাক হোসেন ফুয়াদ হোসেন চৌধুরী ও আঃ ছালেক মিয়া বিষয়টি অমানবিক ও ক্ষমতার অপব্যবহার বলে উল্লেক করেন। অপরদিকে এলাকাবাসী ও সুধীমহল বিষয়টি ন্যাক্কার জনক উল্লেখ পূর্বক সুষ্ট তদন্ত পূবৃক অভিযুক্ত চেয়ারম্যান অমিনুলের বিরুদ্ধে সঠিক আইনি পদক্ষেপের জোর দাবি জানিয়েছেন

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০২৪ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | তিস্তা সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun