সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:১৭ পূর্বাহ্ন

রংপুরে কিশোরগ্যাং-এর নির্মমতা : চালককে তিস্তা ব্রিজ থেকে নদীতে ফেলে অটোরিকশা ছিনতাই

রংপুরে কিশোরগ্যাং-এর নির্মমতা : চালককে তিস্তা ব্রিজ থেকে নদীতে ফেলে অটোরিকশা ছিনতাই

 

 

 

মঙ্গলবার দিনগত মধ্যরাতে রংপুরের কাউনিয়ায় চালককে তিস্তা সেতুর ওপর থেকে নদীতে ফেলে দিয়ে একটি অটোরিকশা ছিনতাই করে পালিয়েছে ৮ জন দুষ্কৃতকারী। যাদের সবার বয়স ১৫ থেকে ১৭ বছর। তবে বিষয়টি বুঝতে পেরে কয়েকজন লোক টহলপুলিশকে জানালে দ্রুত তাকে নদী থেকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

রাত সোয়া ১২টার দিকে এই ঘটনার পর আসাদুল ইসলাম নামে ওই অটো চালককে কাউনিয়া উপজেলা স্বাস্থকেন্দ্রে নেয়া হয়েছে। তার বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট সদরের মেকড়টারিতে। তার বাবার নাম দেলোয়ার হোসেন।

আসাদুল জানান, রংপুরের সাতমাথা থেকে রাজারহাটের তিস্তা যাওয়ার কথা বলে ৮ জন কম বয়সী ছেলে তার অটোরিকশায় উঠে বসে। ৪শ টাকায় ভাড়া ঠিক করে কুড়িগ্রামের রাজারহাটের তিস্তা এলাকায় যেতে চায়। তিস্তা নদী পার হওয়ার সময়, ব্রিজের ঠিক মাঝামাঝি আসাদুলকে গাড়ি থামাতে বলে কিশোর দলের সদস্যরা। তাদের কথামতো অটোরিকশা থামাতেই পাঁজাকোলা করে তাকে ব্রিজের রেলিঙের ওপর দিয়ে মাঝ নদীতে ফেলে দেয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চালককে ব্রিজ থেকে ফেলে দেয়ার পর কালবিলম্ব না করে দুষ্কৃতকারী কিশোররা অটোরিকশাটি ঘুরিয়ে রংপুরের দিকে চলে যায়। পেছন থেকে তারা কয়েকজন দৃশ্যটি দেখে ছিনতাইয়ের ঘটনাটি বুঝতে পারেন এবং ওই সময় টোলপ্লাজায় অবস্থানরত টহলপুলিশের সদস্যদের জানান।

টোলপ্লাজায় অবস্থানরত লালমনিরহাট সদর থানার এসআই রওশানুল খাবিরসহ টহলপুলিশ দলের সদস্যরা দ্রুত একটি নৌকায় করে নদীতে নামেন। নৌকার মাঝি আজিজুল ও পুলিশ সদস্য শ্যামল প্রবলস্রোতের সঙ্গে যুদ্ধ করে মাঝ নদী থেকে যুবক আসাদুল ইসলামকে তুলে আনেন।

এই দুঃসাহসিক অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া এসআই রওশানুল খাবির সময় নিউজকে জানান, সাঁতার না জানলেও আসাদুল ইসলাম কোন রকমে ব্রিজের পিলার জাপটে ধরে রাখায় সহজে তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। নদীতে এখন ভরাবর্ষার গভীর পানি থাকলেও ভাগ্যক্রমে তাকে উদ্ধার করে আনা গেছে বলে মন্তব্য করেন এসআই রওশানুল খাবির।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution