বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

রংপুরে নকল মূর্তি প্রতারক চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

রংপুরে নকল মূর্তি প্রতারক চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

ফেরদ্দৌস জয়;

স্বপ্নে প্রাপ্ত স্বর্ণের মূর্তি বলে পিতল বা কাসার মূর্তি দিয়ে অভিনব কায়দায় আন্তঃজেলা প্রতারণাকারী চক্রের দুই সদস্যকে নাগেশ্বরী থেকে গ্রেফতার করেছে রংপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশ।

সোমবার সকাল ১১ টায় রংপুর ডিবি পুলিশের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান জানান,প্রধান আসামী মিরাজুল ইসলাম কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী থানার চর বেরুবাড়ি গ্রামের রহমত আলীর ছেলে এবং অপর আসামী রুবেল(৩০)নগরীর কামাল কাছনা এলাকার আবু সাইদের ছেলে।

ঘটনাক্রমে জানান যায়,কিছুদিন আগে আলু ব্যাবসায়ী মাসুদরানা (৩৬) এর সাথে রুবেলের পরিচয় হয় এবং রুবেল তার সহোযোগী মিরাজুল ইসলামের সাথে মাসুদ রানার পরিচয় করিয়ে দেন।

এক পর্যায়ে মিরাজুল রুবেলকে মুঠোফোনে জানান দুপচাঁচিয়া থানা, বগুড়ায় তার পরিচিত মনসুর ফকির নামক এক ব্যক্তির খালা স্বপ্নের মাধ্যমে একটি স্বর্ণের মূর্তি পেয়েছেন। মূর্তিটি অনেক দামি ও বিরল। ভালো ক্রেতা পেলে মূর্তিটি বিক্রি করে দিবেন।

এর প্রেক্ষিতে মূর্তিটি দেখার জন্য গত ২৮ এপ্রিল রাত ১০টায় মাহিগঞ্জের আমতলি মোড় এর পূর্ব পাশে ফাকা রাস্তায় রুবেলের মাধ্যমে বগুড়ার দুপচাচিয়া থেকে আসা মনসুর ফকির এর সাথে মাসুদ রানার পরিচয় হয় এবং গ্রেফতারকৃত আসামী মিরাজুল এর মাধ্যমে তাকে একটি নকল স্বর্ণের মূর্তি দেখানো হয়।
স্বর্ণের মূর্তির বিষয়ে বিশ্বাস যোগ্যতা অর্জনের জন্য প্রতারক চক্র মাসুদকে নকল স্বর্ণের মূর্তি থেকে ছোট্ট এক টুকরো ভেঙে দিয়ে প্রতারক চক্র মাসুদকে বলেন, এটি পরীক্ষা করে প্রকৃত স্বর্ণ মনে হলে মূর্তিটি ক্রয় করবেন নতুবা ক্রয় করবেন না।

ভুক্তভোগী মাসুদ তাদের প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়ে অল্প সময়ের মধ্যে ছোট্ট স্বর্ণের টুকরাটি কাছের স্বর্ণকার দ্বারা পরীক্ষা করিয়ে প্রকৃত স্বর্ণ বিষয়ে আশ্বস্ত হন।
এরপর রাতে মাসুদ রানা সরল বিশ্বাসে উক্ত মূর্তিটি ক্রয় করার ইচ্ছা পোষণ করলে মূর্তিটির দাম ৪,০০,০০০/- (চার লক্ষ) টাকা ঠিক হয়। তখন স্বর্ণের মূর্তিটি পাওয়ার আশায় মাহিগঞ্জ থানার আমতলি মোড় এর পূর্ব পাশে পীরগাছাগামী ফাকা রাস্তায় ২,৬০,০০০/-(দুই লক্ষ ষাট হাজার) টাকা মনসুর ফকিরকে প্রদান করেন। কিন্তু পরোক্ষণেই প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্যদ্বয় বাদীর সরল বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে ভুক্তভোগী মাসুদ রানাকে ঠকিয়ে মূর্তিটি প্রদান না করে টাকা নিয়ে কৌশলে পলিয়ে যায়।
পরে ডিবি পুলিশ কুড়িগ্রামের বেরুবাড়ি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে প্রতারক মোঃ মিরাজুল ইসলামকে গ্রেফতার করে।

মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান আরো জানান,
প্রতারণামূলক অপরাধের সাথে জড়িত অন্যান্য সকল অপরাধীদের তদন্তের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে। প্রতারক চক্রের সকল সদস্যদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে ডিবি পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী বাদী হয়ে মাহিগঞ্জ থানায় একটি নিয়মিত মামলা রুজু হয়েছে।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution