1. jfjoy24@gmail.com : admin :
  2. wordpressdefaults@gmail.com : defaults :
১০ কোটি অগ্রিম বিল দিয়েও লঘু দণ্ডে পার | তিস্তা সংবাদ
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১২:২৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রংপুরে ডাক্তার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাকিরের বিরুদ্ধে পিস্তল উঁচিয়ে প্রতিবেশীকে হুমকি, (জিডি) নথিভুক্ত পীরগাছায় উপজেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত গঙ্গাচড়ায় শেখ হাসিনা সেতুর কার্পেটিংয়ে ফাটল, ভারী যানবাহনে নিষেধাজ্ঞা রংপুরে মরিচক্ষেত থেকে অজ্ঞাত যুবকের মর*দেহ উদ্ধার রংপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের আয়োজনে ঈদ ক্রিকেট ফেস্টিভ্যালের পুরুষ্কার বিতরণ ঈদে দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর আলী বাবা থিম পার্ক বিনোদন কেন্দ্র বিষাক্ত সাপ রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক, বন বিভাগের ৭ পরামর্শ দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা তিস্তায় নৌকাডুবি: দ্বিতীয় দিনের অভিযান শেষ, এক পরিবারের ৪ জনসহ এখনও নিখোঁজ ৬

১০ কোটি অগ্রিম বিল দিয়েও লঘু দণ্ডে পার

প্রতিনিধি
  • আপডেট রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ২১

কাজের আগেই ঠিকাদারকে অগ্রিম প্রায় সাড়ে ১০ কোটি টাকা পরিশোধ করার আলোচিত ঘটনায় লঘু দণ্ড দিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীকে বিভাগীয় মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। রাজধানীতে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হসপিটাল সম্প্রসারণ প্রকল্পে বিতর্কিত ঠিকাদার এস এম গোলাম কিবরিয়া ওরফে জি কে শামীমের প্রতিষ্ঠানকে এই বিপুল পরিমাণ অর্থ পরিশোধ করেছিলেন গণপূর্ত অধিদপ্তরের শেরেবাংলা নগর ডিভিশনের তখনকার নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ ফজলুল হক। বর্তমানে তিনি রাজশাহী সার্কেলে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত। তাঁকে বর্তমান বেতন গ্রেডের প্রারম্ভিক ধাপে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে।গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন গত ২৫ জানুয়ারি প্রকৌশলী মোহাম্মদ ফজলুল হকের বিষয়ে এক অফিস আদেশ জারি করেন। বিভাগীয় মামলাটি দীর্ঘদিন ঝুলিয়ে রেখে সচিব অভিযুক্ত প্রকৌশলীকে বেতন কমানোর মতো লঘু দণ্ড দিয়েছেন। অথচ কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ নির্মাণ প্রকল্পে দরপত্র আহ্বানসংক্রান্ত কাজে অনিয়মের অভিযোগে সংশ্লিষ্ট তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে পদাবনতি দেওয়া হয়।এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে পূর্তসচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিনকে পরপর দুই দিন দফায় দফায় ফোন করা হলেও তিনি ধরেননি। এরপর বার্তা পাঠিয়েও সাড়া পাওয়া যায়নি।গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, প্রকৌশলী ফজলুল হকের বিষয়ে সচিবের অফিস আদেশে বলা হয়েছে, অগ্রিম বিল পরিশোধের অভিযোগে ফজলুল হকের বিরুদ্ধে চলমান বিভাগীয় মামলার বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শাকিলা জেরিন খানকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদনে বলেন, নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে কাজের আগেই ১০ কোটি ৪৪ লাখ ৯০ হাজার টাকা ঠিকাদারকে পরিশোধের বিষয়ে প্রকৌশলী ফজলুল হকের সম্পৃক্ততা রয়েছে। তিনি পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইন, ২০০৬ এবং সরকারি ক্রয় বিধিমালা (পিপিআর), ২০০৮-এর ব্যত্যয় ঘটিয়ে আর্থিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন করেছেন। পরবর্তী সময়ে জামানতের টাকা থেকে তা সমন্বয় করে সরকারের বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা মিলেছে।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০২৪ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | তিস্তা সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun