1. jfjoy24@gmail.com : admin :
  2. wordpressdefaults@gmail.com : defaults :
কেজি দরে বিক্রির সময় ১১ মণ সরকারি বই উদ্ধার | তিস্তা সংবাদ
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পীরগাছা থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ আটক – ৪ সারাদেশে ৩ দিনের হিট অ্যালার্ট জারি স্বর্ণ চুরির অপবাদ দিয়ে কিশোরী গৃহকর্মীকে গরম ছ্যাঁকা বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনালের দেয়াল ভেঙে ভেতরে বাস, প্রাণ গেল প্রকৌশলীর দেশে প্রতিদিন সড়কে প্রাণ হারাচ্ছেন ১৬ জনের বেশি সমবায় কৃষি নিশ্চিত হলে দেশে কখনো খাদ্যাভাব হবে না: প্রধানমন্ত্রী পীরগাছায় প্রাণীসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত এমপি-মন্ত্রীর স্বজনদের উপজেলা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে আ.লীগের নির্দেশনা মেরিনা তাবাশ্যুম: টাইম ম্যাগাজিনের প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকায় সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণা, ১৭ মামলার আসামি ধরা

কেজি দরে বিক্রির সময় ১১ মণ সরকারি বই উদ্ধার

প্রতিনিধি
  • আপডেট বৃহস্পতিবার, ৭ মার্চ, ২০২৪
  • ১৪
নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর 
রংপুরের পীরগাছায় ভাঙরির দোকানে বিক্রির সময় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১১ মণ বই উদ্ধার করেছে স্থানীয় জনতা। এ সময় ক্রেতা সাইফুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) দুপুরে উপজেলার ছাওলা ইউনিয়নের পাওটানা হাট সংলগ্ন এলাকা থেকে বইগুলো উদ্ধার করা হয়।
আটক সাইফুল ইসলাম একই ইউনিয়নের দামুশ্বর গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড়ি থেকে ২০২৪ শিক্ষাবর্ষের ৪৪০ কেজি প্রাথমিকের নতুন বই বিক্রি করেন দক্ষিণ ছাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাইদুল ইসলাম। ২০ টাকা কেজি দরে তা কিনে নেন ভাঙরি ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম। পরে বস্তায় ভরিয়ে বইগুলো ভ্যানে করে নিয়ে যাওয়ায় সময় পাওটানাহাট সংলগ্ন এলাকায় আটক করে স্থানীয়রা। সরকারি বই এভাবে বিক্রির ঘটনায় স্থানীয় লোকজনের মাঝে উত্তেজনা দেখা দিলে গ্রাম পুলিশের সহায়তায় তাকে ছাওলা ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে আসলে বইসহ ক্রেতাকে তার হাতে তুলে দেওয়া হয়। পরে বইসহ ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলামকে থানায় নেয় পুলিশ।
স্থানীয়দের অভিযোগ, দক্ষিণ ছাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাইদুল ইসলাম ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগম পাশের দৌলত খা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকরি করেন। তারা উপজেলা শিক্ষা অফিসের কতিপয় কর্মকর্তার যোগসাজসে দীর্ঘদিন থেকে ১০-১২টি বেসরকারি স্কুলের নামে বিপুল পরিমাণ বই উত্তোলন করে আসছেন। পরে ওই বইগুলো স্থানীয় বাজারে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করতেন মাইদুল ইসলাম। তবে তাদের কাছে এতো বই থাকার বিষয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করেন অনেকে। তারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।
পাওটানা হাটের ব্যবসায়ী শামসুল ইসলাম বলেন, ওই প্রধান শিক্ষক এতোগুলো বই কিভাবে পেলেন তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।
বই ক্রেতা সাইফুল ইসলাম বলেন, বইগুলো তার কাছে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাইদুল ইসলাম ও তার স্ত্রী আছিয়া বেগম বিক্রি করেন এবং বই নেওয়ার সময় যেন কেউ না দেখতে পায় সে বিষয়েও সতর্ক থাকতে বলেছিলেন।
প্রধান শিক্ষক মাইদুল ইসলাম বলেন, আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। বই বিক্রির বিষয়ে আমি কিছু জানি না। সে সময় আমি স্কুলে ছিলাম।
পীরগাছা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে সাড়ে ৪৪০ কেজি বই উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সত্যতা পাওয়ায় প্রধান শিক্ষক মাইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে প্রতিবেদন পাঠিয়েছি।
এ ব্যাপারে পীরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুশান্ত কুমার সরকার বলেন, এ ঘটনায় ক্রেতা সাইফুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। প্রধান শিক্ষককে আটকের জন্য অভিযান চলছে।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০২৪ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | তিস্তা সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun