বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:০৪ অপরাহ্ন

পানি ও বিদ্যুৎ সংকটে পার্বতীপুরে ২৬২ ঘর চার মাস ধরে তালাবদ্ধ

পানি ও বিদ্যুৎ সংকটে পার্বতীপুরে ২৬২ ঘর চার মাস ধরে তালাবদ্ধ

 

পার্বতীপুরে ২৬২ গৃহহীনদের ঘর নির্মাণ করে হস্তান্তর করা হলেও চার মাস ধরে তালাবদ্ধ। নির্মাণকৃত আবাসন প্রকল্পে বরাদ্দ না থাকায় পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারেনি সরকার। পানি ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা না থাকায় ঘরে উঠতে পারেনি বরাদ্ধপ্রাপ্ত বেশীরভাগ গৃহহীনরা।

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে উপজেলা প্রশাসনের বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধী, স্বামী পরিত্যক্তা, অতিশয় বৃদ্ধ, বিধবা, ভিক্ষুক, দুস্থ ভূমিহীন ও গৃহহীন ২৬২টি পরিবারের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে ‘জয় বাংলা পল্লী’ নামের আবাসন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রায়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য বাসগৃহ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় মুজিববর্ষের উপহার হিসেবে এসব গৃহ পেয়েছেন তারা।

এতে করে কপাল খুলেছে পার্বতীপুর উপজেলার ২৬২টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের। এসব পরিবারের জন্য পর্যায়ক্রমে বিদ্যুৎ, পানি, খেলার মাঠসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা করার কথা থাকলেও দীর্ঘ চার মাস যাবত বিদ্যুৎ ও পানি সরবরাহ করতে না পারায় ঘরে উঠতে পারেনি গৃহহীনরা।

১০নং ইউনিয়নে নির্মিত জয়বাংলা পল্লী-১৩ (মটের দিঘী) আবাসনে গিয়ে দেখা যায়, ১৫টি ঘরের সবগুলো তালাবদ্ধ অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এ প্রকল্পের সামনে রাস্তা পিছনে বড় দিঘী (পুকুর), এখানে নেই কোনো খেলার মাঠ। বরাদ্দপ্রাপ্ত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, জমির দলিল ও ঘরের চাবি পেলেও পানি ও বিদ্যুৎ না থাকায় ঘরে উঠতে পারছি না।

এ ব্যপারে হরিরামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান শাহ এর কাছে জানতে চাইলে বলেন, তার ইউনিয়নে আশ্রায়ণ প্রকল্প-২ এর অধীনে ১৫টি গৃহ নির্মাণ করা হয়েছে। তবে কারা এসব বাড়ি পেয়েছেন সে তালিকা তার কাছে নেই।

বরাদ্দপ্রাপ্তদের এখন স্বপ্ন কখন তারা স্বপ্ননীড়ে উঠবে। প্রধানমন্ত্রীর আশ্রায়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের তত্ত্বাবধানে একসাথে উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের ১৭টি স্থানে ২৬২টি ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ করে বরাদ্দ প্রাপ্তদের নিকট হস্তান্তর করা হলেও পানি ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা না থাকায় ঘরে উঠতে পারেনি তারা।

বরাদ্দপ্রাপ্ত প্রতিটি পরিবারের জন্য থাকছে দুই কক্ষ বিশিষ্ট আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত এসব গৃহ। আবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা ভূমি ও গৃহহীনদের দেওয়া হয়।

ইউএনও অফিস সূত্রে জানা গেছে, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ২০২০-২১ অর্থ বছরে আশ্রায়ণ-২ প্রকল্পে ভূমি ও গৃহহীনদের মর্যাদার সাথে বসবাসের লক্ষ্যে সরকারের ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত জমিতে ঘর নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়।

উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের বেলাইচন্ডি, মন্মথপুর, রামপুর, পলাশবাড়ী, চন্ডিপুর, মোমিনপুর, মোস্তফাপুর, হাবড়া, হামিদপুর ও হরিরামপুরসহ ১৭টি স্থানে ২৬২টি ঘর নির্মাণ করা হয়। এতে প্রতি পরিবারের জন্য বরাদ্দ করা হয় দুই শতক জমি। তার ওপর ২টি রঙিন টিনসহ ইটের ঘর, ২টি প্লেইনশিট জানালা, দরজা ও পাকা মেঝে।

এ ছাড়া রান্না ঘর ও আলাদা স্থানে টয়লেটের ব্যবস্থা রয়েছে। আর এসব প্রতি বাসগৃহ নির্মাণে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল।

পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাশিদ কায়সার রিয়াদ বলেন, এসব আবাসনে বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য সচিবালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে এবং পানি সরবরাহের জন্য জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে জানানো হয়েছে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গৃহিত হলে এসব আবাসনে সবাই বসবাস করতে পারবেন বলে তিনি জানান।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2022 teestasangbad.com
Developed BY Rafi It Solution