1. jfjoy24@gmail.com : admin :
  2. wordpressdefaults@gmail.com : defaults :
গঙ্গাচড়ায় রাতের আঁধারে প্রধানমন্ত্রী দেয়া আশ্রয়ণ ঘর ভাঙলো ইউপি চেয়ারম্যান | তিস্তা সংবাদ
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পীরগাছা থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ আটক – ৪ সারাদেশে ৩ দিনের হিট অ্যালার্ট জারি স্বর্ণ চুরির অপবাদ দিয়ে কিশোরী গৃহকর্মীকে গরম ছ্যাঁকা বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনালের দেয়াল ভেঙে ভেতরে বাস, প্রাণ গেল প্রকৌশলীর দেশে প্রতিদিন সড়কে প্রাণ হারাচ্ছেন ১৬ জনের বেশি সমবায় কৃষি নিশ্চিত হলে দেশে কখনো খাদ্যাভাব হবে না: প্রধানমন্ত্রী পীরগাছায় প্রাণীসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত এমপি-মন্ত্রীর স্বজনদের উপজেলা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে আ.লীগের নির্দেশনা মেরিনা তাবাশ্যুম: টাইম ম্যাগাজিনের প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকায় সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণা, ১৭ মামলার আসামি ধরা

গঙ্গাচড়ায় রাতের আঁধারে প্রধানমন্ত্রী দেয়া আশ্রয়ণ ঘর ভাঙলো ইউপি চেয়ারম্যান

সুজন আহমেদ
  • আপডেট মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৮৮

 

 

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণাধীন ঘর ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে মর্নেয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান ও ইউপি সদস্য মজমুল হক( ভেগল)’র বিরুদ্ধে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মুজিববর্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবেনা।’ প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনা বাস্তবায়নে ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষের বাসস্থান নিশ্চিত করতে গঙ্গাচড়ার মর্নেয়া ইউনিয়নের ভাঙ্গাগড়া এলাকায় গৃহ নির্মাণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। অত্যন্ত দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ।

বিজ্ঞাপন

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়,রবিবার রাতে উপজেলার মর্নেয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান ও ইউপি সদস্য মজমুল হক (ভেগল) আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের নিলটন ভেঙে দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আশ্রয়নে বসবাস কারী নাছির হোসেন বলেন, আমি রাত সাড়ে ১১ টার দিকে বেগুন পাহাড়া দেওয়ার সময় দূর থেকে দেখি ,দু’জন লোক আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে ডুকলো এবং কি যেন একটা জিনিস দিয়ে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের নিলটন গুলো ভাঙতেছে। তখন আমি সামনে এগিয়ে গিয়ে দেখি জিল্লুর চেয়ারম্যান ও ভেগল মেম্বার আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের নিলটন গুলো ভাঙতেছে। আমি তাদেরকে জিজ্ঞেস করি,আপনারা রাতের আঁধারে এসব কাজ করছেন কেন? তখন তারা আমাকে ধমক দিয়ে বলে ,তুই চুপ থাক, বেশি কথা বলিশ না । তুই বেশি বাড়াবাড়ি করলে তোকে আমি দেখে নিবো। তখন আমি সেখান থেকে চলে যাই ।


আশ্রয়ন প্রকল্পের সাথে বসবাসকারী হাসিম উদ্দিন বলেন, অনেক রাতে আমি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর গুলোতে ঘুড়ে বেড়াতে দেখেছি। তারা কি জেনো করতেছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্যারাকের সাইত্রিশ নাম্বার ঘরের দু’টি জানালাও ভাঙা, এবিষয়ে পরবর্তীতে উক্ত ঘর বরাদ্দ পাওয়া রঞ্জনা বেগমের সাথে কথা হলে তিনি বলেন ,হামাক সাইত্রিশ নাম্বার বাড়ি বরাদ্দ দিছে। হামরা বাড়িত উঠার বন্দোবস্ত করতেছি,তার আগোতে কায় বা আইতোত ঘরের জানালা ভাঙি ফেলাইছে। কাজ করা মিস্ত্রিরা খবর দিলে জানালার ভাঙা পাল্লাগুলো বাড়িত নিয়া থুইছুং।
ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আশ্রয়নের ঘর নির্মাণে কোন নিম্নমানের সামগ্রী,রড সঠিকভাবে দেওয়া হয়েছে কিনা তাই দেখতে গিয়েছিলাম। কিন্তু রাত ১১ টা ১২ টার দিকে অন্ধকারে নিজ হাতে ভেঙে পরীক্ষা করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দিতে পারেন নি। সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যের এমন কর্মকাণ্ড মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর মহতী উদ্যোগের বিপক্ষে নিসন্দেহে নিরব ষড়যন্ত্র, আর এই ষড়যন্ত্রের সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে সঠিক বিচারের দাবিও জানান সূধী সমাজ ।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ তামান্না বলেন, আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে আশ্রোয়ন প্রকল্পের ঘর ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি ও সতত্যাও মিলেছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কৃর্তপক্ষে অবগত করা হয়েছে।

 

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০২৪ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | তিস্তা সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun