1. jfjoy24@gmail.com : admin :
  2. wordpressdefaults@gmail.com : defaults :
পাটগ্রামের আলোচিত বৌমা উদ্ধার | তিস্তা সংবাদ
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১১:৪৯ অপরাহ্ন

পাটগ্রামের আলোচিত বৌমা উদ্ধার

প্রতিনিধি
  • আপডেট শনিবার, ১৯ জুন, ২০২১
  • ১৬০

 

মিনহাজ পারভেজ,পাটগ্রাম লালমনিরহাট

গত ১২ জুন লালমনিরহাটের পাটগ্রামে আলোচিত ঘটনা! পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে প্রতিবেশী এক শ্বশুর ও বউমা দু’জনে পালিয়ে যান।এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই বউমা’র শ্বশুর হুদা।
তিন সন্তানের জনক প্রতিবেশী শ্বশুরের হাত ধরে এক সন্তানের জননী প্রতিবেশী বউমা পালানোর ঘটনায় শহর জুড়ে আলোচনা চলছে এরই মধ্যে আলোচিত ওই বৌমাকে উদ্ধার করেছে পাটগ্রাম থানা পুলিশ।
পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ উমর ফারুকের নেতৃত্বে তদন্ত কর্মকর্তা হাফিজুল ইসলামের সহযোগিতায় পুলিশের উপপরিদর্শক এসআই নিজাম উদ দৌলা সঙ্গীয় এস আই লুৎফর, রতন, আইয়ুব সহ সঙ্গীয় ফোর্স গত ১৭ জুন অনুমান রাত দুই ঘটিকায় পাটগ্রাম উপজেলার টং টিং ডাঙ্গার হরিরহাট গ্রামের একটি বাড়ি থেকে পাটগ্রামের আলোচিত ওই বৌমাকে উদ্ধার করেন।
এরপর তার সম্মতিক্রমে তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে পাটগ্রাম থানা পুলিশ।
নির্ভরযোগ্য সূত্রে খবর,এখন সেই যুবতী বৌমা তার বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন ।

জানা গেছে, পাটগ্রাম পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের সোহাগপুর কদমতলী এলাকার বাসিন্দা শাহীন চলতি বছর ডালিম প্রতীক নিয়ে পৌর কাউন্সীলর পদে নির্বাচন করেছিলেন। ওই সময় সম্পর্কের সুত্রপাত বলে জানা যায়।নির্বাচনে হেরে গেলেও পরকীয়াতে মত্ত শাহীন কে শ্বশুর আব্বা সম্পর্ক ধরে ডাকা সেই প্রতিবেশী বউমা’র রেহাই মিলেনি। দু’জনে মাঝেমধ্যে গোপন অভিসারে একে অপরের টানে দেখা করতেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তালেবের ছেলে শাহীনের হাত ধরে বাড়ী ছেড়ে পালিয়েছেন বউমা এমন আলোচনা এখন টক অব দ্যা টাউন বলে স্থানীয় লোকজন জানান।
ওই বৌমার আপন শ্বশুরের সাথে বন্ধুত্ব থাকার সুবাদে প্রতিবেশী শাহীন সম্পর্কে শ্বশুর হিসেবে বাড়ীতে যাতায়াত করতেন। মাঝেমধ্যে শাহীনকে দাওয়াত খাওয়াতেন তার শ্বশুর। বাল্য বিয়ের শিকার ইতি ও স্বামীর মধ্য বনিবনার অভাব।সেই কারণে স্বামীর ঘর -সংসারকে টাটা বাই বাই জানিয়ে কখন যে তারা একে অপরের সাথে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তা কেউ টের পায়নি।
প্রায় ৩৫/৪০ বছর বয়সের শ্বশুরের সাথে যুবতী বউমা’র পরকীয়া সম্পর্ক প্রমান করে এ এক অসম প্রেম।

এ ঘটনায় তার স্বামীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ভাই এ বিষয়ে এখন আর আমার কোন মন্তব্য নেই কয়েকদিন যাক ।

এবং ঘটনার পর থেকে মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি।

ঘটনার পর থেকে অপরজন অভিযুক্ত প্রতিবেশী শাহীনের ফোন এখন পর্যন্ত বন্ধ পাওয়া গেছে ‌।

আপনার স্যোসাল মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই বিভাগের আরো খবর
© ২০২৪ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | তিস্তা সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun